ট্রাভেল

বাংলাদেশ ট্রাফিক আইন ও জরিমানার তালিকা 2022| পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড করুন

রাস্তায় গাড়ি নিয়ে বের হলেই, বিভিন্ন সময়ে আমরা ট্রাফিকের কাছে বিভিন্ন বিষয়ের মুখোমুখি হতে হয়। সে ক্ষেত্রে একজন ড্রাইভারকে বিভিন্ন সময় জরিমানার সম্মুখীন হতে হয়। কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা বাংলাদেশ ট্রাফিক আইন সম্পর্কে। এবং এই ট্রাফিক আইন জরিমানা সম্পর্কে আমরা অবগত নই। তাই আজকে আমরা বাংলাদেশের ট্রাফিক আইন এর বিস্তারিত খুঁটিনাটি জেনে নেব। কোন অপরাধের জন্য কোন কোন শাস্তি কত টাকা জরিমানা এই নিবন্ধে আমরা সংযুক্ত করেছে।নতুন ট্রাফিক আইন অর্থাৎ সড়ক পরিবহন আইন 2018। বহুল আলোচিত এই আইনটি সরকার দীর্ঘসময় বাস্তবায়ন করেনি। অবশেষে, 22 শে অক্টোবর 2019 তারিখে সরকার আইনটি গেজেট আকারে জারি করে। অর্থাৎ এই দিন থেকে সরকার মূলত আইনটি কার্যকর এ ঘোষণা দেন। নতুন আইনে আগের অপরাধের জরিমানার তুলনায় এই জরিমানার পরিমাণ বেশি করা হয়েছে।

বাংলাদেশের নতুন ট্রাফিক আইন ও বাস্তবায়ন 2022

সড়ক দুর্ঘটনা বাংলাদেশের নিত্য দিনের একটি ঘটনায় দাঁড়িয়েছে। পত্রিকার পাতা খুললেই অথবা টিভির নিউজ চ্যানেলগুলো দিলে প্রতিদিন কিছু না কিছু সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির খবর আমাদের কাছে আসি। এই প্রাণহানির অন্যতম কারণ হচ্ছে যানবাহন চালকদের অযোগ্যতা, এবং গাফিলতি অনেকটাই দায়ী। এর জন্য বাংলাদেশ সরকার নতুন ট্রাফিক আইন চালু করেছে এর আওতায় যেকোনো ড্রাইভারকে আইনের আওতায় আনা যাবে। যেহেতু জরিমানার পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে তাই জরিমানার কথা বিবেচনা করে অনেকেই ট্রাফিক আইন মেনে চলার চেষ্টা করব। কিন্তু এখন প্রশ্ন হলো নতুন ট্রাফিক আইন কবে থেকে কার্যকর হবে?
নতুন ট্রাফিক আইন 22 শে অক্টোবর 2019 থেকে কার্যকর হয়।

বাংলাদেশ ট্রাফিক আইন
বাংলাদেশ ট্রাফিক আইন

ট্রাফিক আইন ও জরিমানার তালিকা 2022

বাংলাদেশ সড়ক দুর্ঘটনা এড়াতে সরকার কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নতুন ট্রাফিক আইন প্রণয়ন করেন। এর আওতায় আগের যে কোন অপরাধে জরিমানা প্রায় দ্বিগুণ করা হয়েছে। এর অন্যতম উদ্দেশ্য হলো রাজপথে যানজট এড়ানো এবং সড়ক দুর্ঘটনার হার কমানো। আমি নিচে একটি তালিকা সংযুক্ত করেছে, যে তালিকা উল্লেখ আছে কোন অপরাধের জন্য কি কি শাস্তি থাকবে।

বাংলাদেশ ট্রাফিক আইন
বাংলাদেশ ট্রাফিক আইন

কখন থেকে নতুন আইন কার্যকরী হবে?

বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক গৃহীত নতুন ট্রাফিক আইন 2018 , যা গত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে বাংলাদেশে কার্যকর হয়েছে। নতুন এই আইনে জরিমানা ও শাস্তির বিধান প্রায় দ্বিগুণ করা হয়েছে। এর অন্যতম উদ্দেশ্য হলো বাংলাদেশের সড়ক দুর্ঘটনার হার কমানো এবং যাত্রীদের নিরাপত্তা প্রদান করা

বিআরটিএ অফিসিয়াল ঠিকানা ও নম্বর

আপনি যদি প্রয়োজন মনে করেন বিআরটিএ অফিসের ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার জানতে বা যোগাযোগ করতে চান তাহলে এই ঠিকানায় যোগাযোগ করুন.

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) প্রধান কার্যালয়, বিআরটিএ ভবন, চেয়ারম্যান বাড়ি, নিউ এয়ারপোর্ট রোড, বনানী, ঢাকা-1212, বাংলাদেশ.

  • ফোন: + 88-02-55040711
  • ফ্যাক্স: + 88-02-55040712
  • ইমেল: info@brta.gov.bd

Md Jahidul Islam

আমি মোঃ জাহিদুল ইসলাম। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলা বিভাগ হতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সম্পন্ন করে 2018 সাল থেকে সমাজের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক,মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি অবলোকন করে- জীবনকে পরিপূর্ণ আঙ্গিকে নতুন করে সাজানোর আশাবাদী। নতুনের প্রতি মানুষের আকর্ষণ চিরস্থায়ী- তাই নবরুপ ওয়েবসাইটে নিয়মিত লেখালেখি করি।
Back to top button